Politics

ভোটের আগে হচ্ছে না মন্ত্রিসভায় রদবদল।
Photo

আসন্ন ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের আগে মন্ত্রীসভায় রদবদল হওয়ার সম্ভাবনা কম বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে সমসাময়িক ইস্যু নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নে কাদের এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, মন্ত্রিসভা রদবদল রুটিন বিষয়, যা প্রধানমন্ত্রীর এখতিয়ার। তবে সিটি করপোরেশন নির্বাচনের আগে কোনো রদবদল হবে বলে মনে হয় না। এর সম্ভবনা একেবারেই কম।

কিছু মন্ত্রীর দক্ষতার প্রশ্নে কাদের বলেন, আমাদের জবাবদিহিতা হচ্ছে সার্বিকভাবে জনগণের কাছে। কিন্তু ব্যক্তিগতভাবে আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে দায়বদ্ধ। প্রত্যেক মন্ত্রণালয়ের পারফরমেন্স তার হাতে আছে, বিচার বিশ্লেষণ তিনিই করছেন। আপনারা জানেন ১০ জন সিনিয়র সচিব অলরেডি বিদায় নিয়েছেন, নতুন ১০ জন এসেছেন। এদের বিভিন্ন জায়গায় দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী সবার পারফরমেন্সের বিষয়টি দেখছেন। পারফরমেন্স অনুযায়ী দায়িত্ব বণ্টন হয়, পরিবর্তন হয়। যখন পরিবর্তন হবে তখন আপনি বুঝতে পারবেন প্রধানমন্ত্রী কোন কোন মন্ত্রণালয়ের কাজকে ভালভাবে দেখছেন, আর কোথায় পারফরমেন্স সঠিক হচ্ছে না। এগুলো তো বিচার বিশ্লেষণ করেই সিদ্ধান্ত নেবেন।

দলে পদ পেয়েছেন আওয়ামী লীগের এমন কয়েকজন নেতা মন্ত্রিসভার সদস্য তাদের ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত আসতে পারে কিনা জানতে চাইলে কাদের বলেন, সেটাও প্রধানমন্ত্রী বলতে পারবেন। তিনি যেটা ভালো মনে করবেন সেটাই হবে, দ্যাট ইজ ফাইনাল। আমরা সবাই তার সিদ্ধান্ত মেনে নেব। তিনি যদি আমাকে বলেন ছেড়ে দাও, আমি ছেড়ে দেব। এটা কোনো বিষয় নয়।

সড়ক পরিবহন আইন বাস্তবায়নের অগ্রগতি প্রসঙ্গে কাদের বলেন, সড়ক পরিবহন আইন বাস্তবায়ন প্রক্রিয়ায় কিছু কিছু বিষয় সহনীয়ভাবে দেখছি, আইনের বাস্তবায়ন চলছে, আমাদের জনবলের সংকট আছে, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সাথে কথা বলেছি, বর্তমান সংকট মোকাবেলায় জনবল যথেষ্ট না।

মধ্যপ্রাচ্যে সাম্প্রতিক উত্তেজনার বিষয়ে তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন, যেভাবে আমেরিকা ও ইরান মুখোমুখি অবস্থানে… বিশ্বে অর্থনৈতিক মন্দার শংকা করছেন বিশ্লেষকরা, এটাতো আমরা এড়াতে পারব না। তেলের দাম বাড়লে তার প্রতিক্রিয়া বাংলাদেশেও আসবে। আমরা চাই তারা যুদ্ধ থেকে সরে আসুক এবং আলাপ আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সামাধন করুক।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে প্রশ্নে কাদের বলেন, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা তার দলের লোকেরা যা বলে চিকিৎসকদের স্টেটমেন্টের সাথে মিল নেই। এখানে চিকিৎসার ব্যাপার চিকিৎসকদের, যত আপন লোকই হয়, চিকিৎসার কি বুঝবে। চিকিৎসকদের যে বোর্ড সেখানে বিএনপির লোকও আছে। তারা তো বলছে না তার শারীরিক অবস্থা অতটা খারাপ।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার বার্ধক্যের কারণে একজন যুবকের মত থাকার কথা না। তার শারীরিক অবস্থা খারাপ হওয়া স্বাভাবিক। আমাদের কাছে মনে হয় এ বিষয় নিয়ে বিএনপি যতটা রাজনীতি করছে শারীরিক অবস্থা ততটা খারাপ নয়। বেগম জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে বিএনপি রাজনীতি করছে এবং রাজনৈতিক ইস্যু খোঁজার চেষ্টা করছে।

Search

Follow us

Read our latest news on any of these social networks!


Get latest news delivered daily!

We will send you breaking news right to your inbox

About Author

Like Us On Facebook

Calendar