health

দেশে করোনার তৃতীয় ঢেউ শুরু। বাতাসে মাত্র কিছুক্ষণেই শেষ হয়ে যায় করোনার কার্যক্ষমতা।
Photo

 

নিজস্ব প্রতিনিধি:

দেশে করোনার তৃতীয় ঢেউ শুরু:

বাংলাদেশে সপ্তাহ দু'য়েক আগেও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছিলো মাত্র দুই শতাংশের নিচে। কিন্তু এরপরই তা ঊর্ধ্বমুখী হতে হতে ১২ শতাংশে উঠে গেছে।

এরইমধ্যে বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হয়েছে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সরকারের ১১ দফা বিধিনিষেধ। প্রশ্ন উঠছে, বাংলাদেশ কি করোনাভাইরাসের তৃতীয় ঢেউয়ের মুখোমুখি?

বিশেষজ্ঞরা বলছেন বিশ্ব থেকে করোনাভাইরাস পুরোপুরি নির্মূল না হওয়া পর্যন্ত সংক্রমণের ঝুঁকি থেকেই যাবে। তবে বাংলাদেশে তৃতীয় ঢেউ আঘাত হানার কারণ হিসেবে সম্ভাব্য কয়েকটি বিষয় চিহ্নিত করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

করোনা ভাইরাসের তৃতীয় ঢেউ কি আছড়ে পড়ল:

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে টিকা দেয়াকে সবচেয়ে কার্যকর পদ্ধতি বলে মনে করা হয়। তবে সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ, মোট জনসংখ্যার বিপরীতে করোনাভাইরাসের টিকা দেয়ার হারে অনেক পিছিয়ে আছে।

সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে শুধুমাত্র আফগানিস্তানের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। সম্প্রতি আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ), বিশ্বব্যাংক গোষ্ঠী, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) ও বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার প্রধানদের নিয়ে গঠিত কোভিড-১৯ টাস্কফোর্সের এক ওয়েবসাইটে এসব তথ্য জানা যায়।

ওয়েবসাইটে বলা হচ্ছে, বাংলাদেশে মোট জনসংখ্যার ২.৬১% মানুষকে দুই ডোজ টিকা দেয়া সম্ভব হয়েছে। অন্যদিকে জনসংখ্যার অনুপাতে এক ডোজ টিকা দেয়া হয়েছে ৪.১৮% মানুষকে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে এ পর্যন্ত প্রথম ডোজের টিকা নিয়েছেন প্রায় দুই কোটি ১৯ লাখ মানুষ। এর মধ্যে সম্পূর্ণ দুই ডোজ টিকা পেয়েছেন, এক কোটি ৪৪ লাখ মানুষ। কিন্তু করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে কার্যকর প্রতিরোধ গড়ে তুলতে এই হার একেবারেই যথেষ্ট নয়, বলছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

এ ব্যাপারে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ মোস্তাক আহমেদ বলেন, `যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের কয়েকটি দেশ তাদের বেশিরভাগ মানুষকে টিকার আওতায় আনতে পেরেছে। এ কারণে সংক্রমণ ঠেকানো না গেলেও গুরুতর অসুস্থতা ও মৃত্যু ঠেকানো যাচ্ছে। ভাইরাস দুর্বল হয়ে পড়ছে। এজন্য টিকা দেয়া অবশ্যই দরকার।'

সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ যদি টিকা সংগ্রহে তৎপরতা বাড়াতে না পারে এবং বয়স নির্বিশেষে মোট জনগোষ্ঠীর একটি বড় অংশকে টিকার আওতায় আনতে না পারে তাহলে তৃতীয় ঢেউ বড় ধরনের ঝুঁকি নিয়ে আঘাত হানবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ বেনজির আহমেদ।

কিন্তু বাংলাদেশে এখনও জনসংখ্যার তুলনায় টিকার মজুদ ও সরবরাহ সন্তোষজনক নয় বলে তিনি জানিয়েছেন। চলতি বছরের শুরুতে বাংলাদেশ সরকার ভারত থেকে করোনাভাইরাসের অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা আমদানি শুরু করলেও প্রথম চালানের পর সেটা বাধার মুখে। ফলে ভাইরাস নিয়ন্ত্রণের প্রক্রিয়া বিঘ্নিত হয়৷

চুক্তি অনুযায়ী জুনের মধ্যে যেখানে অন্তত তিন কোটি ডোজ টিকা পাওয়ার কথা, সেখানে বাংলাদেশ এখন পর্যন্ত সব টিকা বুঝে পায়নি।

এ কারণে যে পরিমাণ জনগোষ্ঠীকে টিকা দিয়ে প্রতিরোধ করার কথা ভাবা হচ্ছিল সেটি বাধাগ্রস্ত হয়েছে। পরে চীন থেকে এবং কোভ্যাক্সের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র থেকে টিকা এলেও তার সুফল পেতে আরও কয়েক মাস সময় লেগে যাবে৷

এক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, তৃতীয় ঢেউ ঠেকাতে বাংলাদেশের উচিত হবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা অনুমোদিত এবং বিভিন্ন দেশে স্বীকৃত ও পরীক্ষিত ভ্যাকসিন দ্রুত সংগ্রহ করে বয়স নির্বিশেষে সবাইকে দ্রুত টিকা কর্মসূচির আওতায় আনা।

এজন্য কোভ্যাক্সের সুবিধা নেয়ার পাশাপাশি মানসম্পন্ন টিকা ক্রয়ে কূটনৈতিক তৎপরতা জোরদার করা। এছাড়া কি পরিমাণ মানুষ ইতোমধ্যে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন সেটার সঠিক তথ্য সংগ্রহের ওপরও জোর দিতে বলেছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ মোস্তাক হোসেন।

কারণ ওই তথ্যের ওপরে ভর করে হার্ড ইমিউনিটির প্রকৃত চিত্র পাওয়া সম্ভব। কিন্তু এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে আক্রান্ত রোগীদের সবাই করোনাভাইরাসের পরীক্ষা করান না। ফলে কেউ আক্রান্ত হলে সেটা সরকারি হিসাবে আসে না।


এদিকে গত মাস থেকে সংক্রমণ হার কমতে শুরু করায় লকডাউন তুলে দেয়ার পাশাপাশি সব অর্থনৈতিক ও সামাজিক কাজের ওপর নিষেধাজ্ঞায় কিছু শিথিলতা আনা হয়েছে।

বিশেষ করে গত বছরের শেষে সংক্রমণের হার কমে আসার পর দেশের অভ্যন্তরীণ ভ্রমণ ও বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্র খুলে দেয়া হয়। সংক্রমণ বাড়তে থাকা অবস্থায় এপ্রিলে লক্ষাধিক ছাত্রছাত্রীর মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা নেয়া হয়।

এরপর রমজান মাসে কেনাকাটা চালু রাখতে খুলে দেয়া হয় শপিং মল, দোকানপাট। সেইসঙ্গে ঈদে গাদাগাদি করে বাড়ি যাওয়ার চাপ তো ছিলই। স্বাস্থ্যবিধি মানতে এ ধরনের অসচেতনতার কারণে সংক্রমণ কিভাবে হু হু করে বেড়েছে সেটা চলতি বছরের মাঝামাঝি এসেই টের পাওয়া যায়।

এই উদাসীনতা অব্যাহত থাকলে বাংলাদেশ করোনাভাইরাসের আরেকটি ঢেউয়ের মুখোমুখি হতে পারে বলে আশঙ্কা জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের।

বাতাসে মাত্র কিছুক্ষণেই শেষ হয়ে যায় করোনার কার্যক্ষমতা:

ভৌগলিকভাবে বাংলাদেশের তিনটি দিকে ভারতের সাথে সীমান্ত থাকায়, সেইসঙ্গে ব্যবসা বাণিজ্য ও চিকিৎসার কারণে দুই দেশে যাতায়াত থাকায় ভারতে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ওঠানামার সঙ্গে বাংলাদেশের সংক্রমণও অনেকটাই প্রভাবিত। সম্প্রতি ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের প্রকোপ, ভারত থেকে এসেছে বলে ধারণা করা হয়।

কেননা এই ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের আসার পর থেকে বাংলাদেশে সীমান্তবর্তী জেলাগুলোয় সংক্রমণ ভয়াবহ রূপ নেয়। এর আগ পর্যন্ত বাংলাদেশে সংক্রমণ ছিল শহরমুখী।

সম্প্রতি ভারতে করোনাভাইরাস সংক্রমণ কমে আসায় নিষেধাজ্ঞায় শিথিল করা হলেও গত কয়েকদিন আবার সংক্রমণের হার বাড়তে শুরু করেছে।


করোনাভাইরাসের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হল এটি টিকে থাকতে অন্যান্য ভাইরাসের মতো প্রতিনিয়ত নিজেকে পরিবর্তন বা মিউটেশন করতে থাকে। বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের তৃতীয় ঢেউ মূলত ভাইরাসের মিউটেশনের কারণে হবে বলে মনে করছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ বেনজির আহমেদ।

এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসের শতাধিক মিউটেশনের কথা জানতে পেরেছে গবেষকরা। তৃতীয় ঢেউয়ের পেছনে নতুন এই ভ্যারিয়েন্টগুলো বড় কারণ হতে পারে বলেই বিশেষজ্ঞদের ধারণা।

বাংলাদেশের অন্তত এক কোটি মানুষ বিভিন্ন দেশে অবস্থান করছেন তারা প্রয়োজনে বা ছুটি কাটাতে বাংলাদেশে আসেন এবং বাংলাদেশেও অনেক বিদেশি নাগরিকের যাতায়াত রয়েছে। এই মানুষদের মাধ্যমে বিদেশ থেকে ভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়তে পারে জানিয়েছেন বেনজির আহমেদ।

তিনি বলেন, `বাংলাদেশে যেহেতু কোয়ারেন্টিন, আইসোলেশন, বেশি বেশি টেস্টিং বিশেষ করে সবার স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা পুরোপুরি নিশ্চিত হয়নি, এ কারণে নতুন কোন ভ্যারিয়েন্ট এলে সেটা দ্রুত ছড়িয়ে পড়বে।'

শিশুদের মধ্যে দেখা যাচ্ছে কোভিডের নানান প্রকোপ:

চলতি বছরের জুন-জুলাই মাসে করোনাভাইরাসের প্রকোপ বাড়ার পর হাসপাতালগুলোয় রোগীর চাপ দেখা গিয়েছে। গত বছরের তুলনায় এবারে শয্যা সংখ্যা, আইসিইউ, ভেন্টিলেটর বা অক্সিজেন সরবরাহ, হাই ফ্লো ন্যাজাল ক্যানুলাসহ অন্যান্য চিকিৎসা সুবিধা বাড়লেও বড় ধরনের ঢেউ সামাল দিতে তা এখনও যথেষ্ট নয় বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এছাড়া জনসংখ্যার অনুপাতে হাসপাতালগুলোর ডাক্তার, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীর সংখ্যা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। স্বাস্থ্য খাতে খালি পদগুলো পূরণে দীর্ঘসূত্রিতা দূর করার ওপর তারা জোর দেন।

বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, কোভিড পরিস্থিতি ভালো থাকা অবস্থায় স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থার এই ত্রুটিগুলো দূর করে বাংলাদেশের উচিত হবে সম্ভাব্য তৃতীয় ঢেউয়ের জন্য প্রস্তুত হওয়া।

 

 

 

 

Search

Follow us

Read our latest news on any of these social networks!


Get latest news delivered daily!

We will send you breaking news right to your inbox

About Author

Like Us On Facebook

Calendar